এখন সময় :
,
PopularITLtd.com
মেনু |||

কখনও আমি মৃত্যু ভয়ে ভীত হইনি: প্রধানমন্ত্রী

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট দেশের বাইরে থাকায় প্রাণে বেঁচে যাওয়া এবং পরবর্তীতে বাধার মুখে দেশে ফিরে আসার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘মানুষের জীবন ক্ষণস্থায়ী। আমি যখন বাংলাদেশে ফিরে আসি, আমি জানতাম যেকোনো সময় হয়তো আমার বাবার মতো ভাগ্য আমাকে বরণ করতে হবে। কিন্তু কখনও আমি মৃত্যু ভয়ে ভীত হইনি।’ সব সময় একটা কথা চিন্তা করেছি, আমাকে কাজ করতে হবে। আমার বাবার স্বপ্ন পূরণ করতে হবে। সেই সিদ্ধান্ত নিয়েই আমি আজো পথ চলছি।’ পঁচাত্তরে সবাইকে হারানোর পর সমৃদ্ধ-উন্নত দেশ গড়তে বাবার স্বপ্ন পূরণ করতে ফিরে এসেছি। সেই সিদ্ধান্তের ওপরই আজো পথ চলছি।

রোববার (১৭ মার্চ) গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৯৯তম জন্মবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস-২০১৯ উপলক্ষে শিশু-কিশোরদের সঙ্গে এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহানাও উপস্থিত ছিলেন।

১৫ আগস্টে হারানো স্বজন ও সেই দিনকার হৃদয়বিদারক ঘটনার কথা তুলে ধরে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘যখন বিদেশে গিয়েছিলাম তখন বিমানবন্দরে সকলে বিদায় দিয়েছিল। কিন্তু ফিরে এসে কাউকে পাইনি। পেয়েছিলাম বনানীতে এক সারি কবর, আর পেয়েছিলাম এখানে টুঙ্গীপাড়ায় আমার দাদা-দাদির কবরের পাশে শুয়ে আছে আমার বাবা।’

‘আমারও প্রতিজ্ঞা ছিল বাবার স্বপ্ন পূরণ করে এই বাংলাদেশকে উন্নত করে গড়ে তুলবো।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি তিন ভাই হারিয়েছি, পেয়েছি লাখো ভাই। কাজেই আমার জীবনটাও আমি উৎসর্গ করেছি। আমরা দুটি বোন আমরা সব কিছু উৎসর্গ করে দিয়েছি জনগণের জন্য, জনগণের কল্যাণে। দেশের মানুষ যদি ভালো থাকে উন্নত জীবন পায় সেটাই আমাদের সবচেয়ে বড় পাওয়া।’

‘আর সে কারণেই আমরা দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। এই বাংলাদেশকে গড়ে তুলবো উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে, যেন আজকের শিশু আগামী দিনে সুন্দর একটা ভবিষ্যত পায়, সুন্দর একটা জীবন পায়। সেই লক্ষ্য সামনে রেখেই কাজ করে যাচ্ছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘তিনি (বঙ্গবন্ধু) চেয়েছিলেন এই যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটিকে গড়ে তুলতে, একটি সুন্দর দেশ গড়তে, যেখানে প্রতিটি শিশু তার জীবন মান উন্নত করতে পারবে। শিক্ষা-দীক্ষা, চিকিৎসা সব দিক থেকে এদেশের মানুষ উন্নত জীবন পাবে-এটাই ছিল তার জীবনের একমাত্র লক্ষ্য। কিন্তু সে কাজটা তিনি করে যেতে পারলেন না। কারণ ’৭৫ এর ১৫ আগস্ট ঘাতকের নির্মম বুলেটের আঘাতে জাতির পিতাকে হত্যা করা হল।’

পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গোপালগঞ্জ জেলা ব্র্যাডিংয়ের লোগের রেপ্লিকা প্রদান করেন গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘বঙ্গবন্ধুকে লেখা চিঠি’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন। বঙ্গবন্ধুকে লেখা শ্রেষ্ঠ চিঠি পাঠ করে শোনান যশোরের কেশবপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্রী সাবিনা ইয়াসমিন।

এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেলাই মেশিন বিতরণ করেন। পরে প্রধানমন্ত্রী ‘আমার কথা শোন’ শীর্ষক ভিডিও প্রদর্শন ও জাতীয় কাব্যনৃত্যগীতি আলেখ্যানুষ্ঠান উপভোগ করেন। অনুষ্ঠানে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, গল্প বলা প্রতিযোগিতা, আবৃত্তি প্রযোগিতা ও ৭ মার্চের ভাষণ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

এরপর শিশুদের ফটোসেশনে অংশগ্রহণ, বইমেলার উদ্বোধন ও বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের আঁকা ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক চিত্র প্রদর্শনী পরিদর্শন করেন।

Share Button
সম্পাদক: রিনি জাহান
নির্বাহী সম্পাদক : মো. কাইছার নবী কল্লোল
যোগাযোগ : ১/এ, (২য় তলা), পুরানা পল্টন লেন, ঢাকা-১০০০
ফোন নম্বর : ০১৬২১০৩৫২৮৯, ০১৬৩৪৭৩১৩৪২
Email: amadarshokal24@gmail.com